সর্বশেষ সংবাদ
হোম / Featured / নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটির উপর স্থগিতাদেশ

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটির উপর স্থগিতাদেশ

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটির উপর স্থগিতাদেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরের দিকে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র সহকারি জজ শিউলী রানি দাস এই আদেশ দেন।

এর আগে বাদী পক্ষের আইনজীবী নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটির উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আদালতে আর্জি করেন। মহানগর কমিটি বিএনপির গঠনতন্ত্র পরিপন্থী দাবি করে আদালতের নজর আনেন। এর প্রেক্ষিতে এদিন শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত দলটির গঠনতন্ত্র মোতাবেক মহানগর বিএনপির কমিটি গঠন হয়নি মর্মে ওই আদেশ দেন।

শুনানিতে বাদী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাড. আবু বক্কর সিদ্দিক। তিনি বলেন, বিএনপির গঠনতন্ত্রে রয়েছে মহানগর কমিটি সিটি করপোরেশনের এলাকাকে কেন্দ্র করেই গঠিত হবে। কিন্তু এখানে মহারগর বিএনপির কমিটি কেবল মাত্র একটি সংসদীয় আসনকে কেন্দ্র করেই গঠন করা হয়েছে। যা দলীয় গঠতন্ত্র পরিপন্থী। তাই আমরা কমিটি সংক্রান্ত মামলাটি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এর কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ চেয়েছি। আদালত শুনানি শেষে যৌক্তিভাবেই এই স্থগিতাদেশ প্রদান করেছেন।

অপরদিকে বিবাদী পক্ষের আইনজীবী হিসেবে আদালতে শুনানিতে অংশ নিয়েছেন অ্যাড. বারী ভূইয়া, আবু আল ইউসুফ খান টিপুসহ কয়েকজন।

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল বলেন, মামলা হয়েছে দুটি কমিটিকে কেন্দ্র করে। অথচ এখানে মহানগর কমিটির কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ দিয়েছেন আদালত। এখানেই বুঝতে হবে, এর পেছনে কেউ কলকাঠি নাড়ছেন।

তিনি বলেন, যারা মামলা করেছেন তারা যদি দলের সত্যিকারের শুভাকাক্সিক্ষ হতেন তাহলে এই ক্ষোভ বা এই বিষয়টা নিয়ে দলীয় ফোরামে কথা বলতে পারতেন। কিন্তু সেটি না করে আদালতে মামলা করেছেন। তাও আবার এমন সময়ে যে সময়ে দলীয় চেয়ারপার্সন কারাগারে। আমরা কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

১১ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির কোনো কমিটিতে পদ না পেয়ে ১০ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলজার খান ও একই ওয়ার্ডের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক নূর আলম শিকদার ওই আদালতে মামলার আর্জি করেন।

মামলায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মামুন মাহমুদ এবং মহানগর বিএনপির সভাপতি অ্যাড. আবুল কালাম ও সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালকে বিবাদী করা হয়।

আদালত ১৩ নভেম্বর ওই দুই নেতার আবেদনটি আমলে নিয়ে বিবাদীদের ১৯ নভেম্বরের মধ্যে আদালতে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন।

মামলার বাদী গোলজান খান জানান, দলের জেলা কমিটিতে অল্প ক’জন স্থান পেলেও মহানগরের কমিটিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১ থেকে ১০ নং ওয়ার্ড পর্যন্ত ১০টি ওয়ার্ডের কোনো নেতাই পদ পাননি। ১০টি ওয়ার্ডের মূল দলের নেতাকর্মীরা দলীয় পদ-পদবির ক্ষেত্রে অবহেলার শিকার হচ্ছেন। দলের জন্য প্রাণপণ কাজ করলেও কেন্দ্রীয় নেতারা তাদের কোনো মূল্যায়ন করছেন না বলে তিনি দাবি করেছেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি অ্যাড. আবুল কালামকে সভাপতি ও এটিএম কামালকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে ২৩ সদস্য বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আংশিক কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। পরবর্তীতে চলতি বছরের ৩০ অক্টোবর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং সিনিয়র সহসভাপতির পদ ঠিক রখে ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজকের জনপ্রিয় সংবাদ

ফতুল্লায় কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় শ্যামল বহিষ্কার

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় এক কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় মিমাংসা করার নামে আসামিকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করার অপরাধে …