সর্বশেষ সংবাদ
হোম / Featured / ফিরে দেখা -২০১৯, বন্দরে রাজনীতি ও জনপ্রতিনিধিদের নানা ছক-১

ফিরে দেখা -২০১৯, বন্দরে রাজনীতি ও জনপ্রতিনিধিদের নানা ছক-১

বন্দর প্রতিনিধি / বন্দর থানা এলাকায় সরকার দলীয় নেতাদের রাজনীতিতে গত বছর তেমন কোন পরিবর্তন না হলেও দুই কাউন্সিলর অনেকটা হতবাক করে তুলে তৃনমূলসহ জেলার নেতাদের। মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক ও নাসিক কাউন্সিলর দুলাল প্রধান এবং আফজাল হোসেন ২০১৯ সালের শেষ দিকে বিভিন্ন দিক তুলে আলোচনায় আসে। বন্দরে আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম বিতরণ করা হলেও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধানকে ফরম দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কাউন্সিলর দুলাল প্রধান। তবে আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানায়, বিতর্কিত কাউকে আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম দেয়ায় কেন্দ্রীয় নির্দেশনা রয়েছে। হয়তো সে কারণেই ফরম পাননি দুলাল প্রধান। কেননা কিছুদিন পূর্বে ফেন্সিডিলসহ ডিবির হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন তিনি। এদিকে দুলাল প্রধানের দাবি, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের কর্মী বলেই ফরম পাননি তিনি।
তবে এ বিষয়ে নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবৎ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আছি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েই দুইবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছি। আওয়ামী লীগের সকল সভা-সমাবেশে আছি আমার সাধ্যমতো কাজ করেছি। কিন্তু আমি সদস্য ফরম পাইনি। এমনকি মাহবুবুর রহমান কমলসহ আরও অনেকেই পাননি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য নিবেদিত থেকে যখন ফরম না পাই তখন খুব কষ্ট লাগে।
না পাওয়ার কারণ হিসেবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তো জানি না কেন দেয় নাই। সদস্য ফরমের দায়িত্বে তো মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। আর ২৩ নং ওয়ার্ডের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি জামান ভাই। তারে জিজ্ঞেস করাতে তিনি বলেন, আমি ও কমল ব্লকের কাউকে ফরম দেয়ায় নিষেধ রয়েছে। হয়তো সভাপতি সাহেবের (আনোয়ার হোসেন) বিরাগভাজন হয়েছি কোন কারণে। নইলে কেন এমনটা হবে? সেক্রেটারি খোকন ভাইকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। আসলে আনোয়ার সাহেব ও আরমান সাহেব বন্দরে তাদের নিজেদের একটা বলয় তৈরি করতে চায়। এমনও হইসে আগে বিএনপি যারা করছে তারাও ফরম পাইছে কিন্তু আমরা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি, শামীম ভাইয়ের সৈনিক কিন্তু ফরম পাই না।
রাজনৈতিক নেতা পদ ও জনপ্রতিনিধি আফজাল হোসেন পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন এমন সংবাদে সর্বত্র আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিষয়টি আরো বেশি ভাইরাল হয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পারিবারিক নাকি রাজনৈতিক হাইব্রিড ও ওয়ানম্যান শো নেতাদের গভীর ষড়যন্ত্রের গ্যাড়াকলের শিকার। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা, ষড়যন্ত্র সহ নানা নাটকীয়তাকে পেছনে ফেলে চমক দেখিয়ে পুনরায় রাজপথে নামার আভাস দিয়েও আফজাল হোসেন শেষ রক্ষা কি করতে পারছেন না। জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক ও নাসিক ২৪ নং ওয়ার্ডের দুই বারের নির্বাচিত কাউন্সিলর আফজাল হোসেন।
সবশেষ ৩০ আগস্ট বিকেলে নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্বপাড় বন্দর খেয়াঘাট সংলগ্ন ময়মনসিংহপট্টিতে নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর ও বন্দর) আসনের জাতীয় পার্টির এমপি ও গার্মেন্ট মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএ সভাপতি এমপি সেলিম ওসমানের আয়োজনে এরশাদের চেহলাম উপলক্ষ্যে দোয়া অনুষ্ঠানে বিশাল এক মিছিল নিয়ে যোগ দেন আফজাল।
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ২৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফজাল হোসেন সংবাদ সম্মেলন করে দলীয় ও কাউন্সিলর পদ ছেড়ে দেয়ার ঘোষনা দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বন্দর প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমি পারিবারিক চাপসহ দলীয় কিছু অদৃশ্য ইশারায় জনগণের সেবা করতে না পারায় দলীয়পদ ও কাউন্সিলর থেকে অব্যাহতি নিব। এ জন্য আামি আমার কর্মীদের কাছে ক্ষমা প্রার্থী। শীঘ্রই পদত্যাগপত্রসহ আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করে দলীয়পদ ও কাউন্সিলর থেকে অব্যাহতির ঘোষণা দিবেন বলে সাংবাদিকদের জানান তিনি।
তিনি আরো বলেন, আমি কিছু চাপের ফলে জনগণের কাঙ্খিত সেবা দিতে পারিনি। জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে কাউন্সিলর করেছেন তাদের সেবা করার জন্য আমি তাদের সে সেবা দিকে ব্যর্থ হয়েছি। আমি দলীয় ও কাউন্সিলরের পদ ছেড়ে দিয়ে উম্মুক্ত হয়ে স্বাধীন ভাবে বিনা বাধায় আজীবন জনগণের সেবা করে যাব। আমি জনগণের সেবা দেয়ার জন্য দলীয় পদ ও কাউন্সিলর পদের বাধা অতিক্রম করে স্বেচ্ছায় দলীয় ও জনপ্রতিনিধির পদ থেকে সরে যেতে চাচ্ছি। জনগণ আমাকে ক্ষমা করবে। এজন্য আমি সকলের সহযোগিতা চাই। ২০১৯ সালটি বন্দরের দুই তরুন রাজনৈতিক নেতা আফজাল হোসেন পদত্যাগের ঘোষনা দিলেও পরে সরে আসে তার সিদ্ধান্ত থেকে।

আজকের জনপ্রিয় সংবাদ

নাঃগঞ্জ সদর ওসি তদন্ত কর্মকর্তা কে আদালতে তলব

স্কুল ছাত্রী জিসা মনি অপহরণ মামলায় সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ও মামলার বর্তমান …