সর্বশেষ সংবাদ
হোম / Featured / ফতুল্লায় প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেপ্তার

ফতুল্লায় প্রতারক চক্রের চার সদস্য গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় প্রতারক চক্রের চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মোবাইল ফোনের পরিচয়ের সূত্র ধরে বাড়িতে আমন্ত্রণ জানিয়ে বাসায় নিয়ে এসে আটক করে মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে ফতুল্লার রামারবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলো- ফতুল্লার রামারবাগ পাঁচতলা এলাকার জাকির মিয়ার পাঁচতলা ভবনের ৪র্থ তলার ভাড়াটিয়া মৃত ফজলে করিম ফরাজির ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৪০), একই বাড়ির ভাড়াটিয়া মৃত আনোয়ার হোসেন হাওলাদারের মেয়ে তানিয়া (২৬), শাহজাহান মোল্লার মেয়ে শারমিন (২৩) ও শামসুর আলীর ছেলে মনির (৩২)।

মামলায় ভুক্তভোগী কামরুল শেখ জানান, কামরুল শেখ পেশায় একজন ট্রাক চালক। তিনি গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানাধীন ডংগার দুগ্ধপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. সিদ্দিক শেখের ছেলে। কাজের সুবাধে ফতুল্লা বাজার এলাকায় বসবাস করে আসছেন। প্রায় ১৫ দিন পূর্বে আসামি তানিয়ার সাথে মোবাইলের মাধ্যমে পরিচয় হয় তার। এরপর তানিয়া তার বাসায় কামরুলকে নিমন্ত্রন করে। নিমন্ত্রণ অনুযায়ী তানিয়ার দেয়া তথ্য মতে গত সোমবার বিকেল ৩টার দিকে ফতুল্লার রামারবাগ পাঁচতলা এলাকার জাকির মিয়ার পাঁচতলা ভবনের ৪র্থ তলার ফ্লাট বাসা যায় কামরুল। পরে আসামি জাহাঙ্গীর আলম, তানিয়া, শারমিন ও মনিরসহ অজ্ঞাত আরো ২/৩ জন ওই ফ্লাটেই আটকে ফেলে কামরুলকে। এক পর্যায়ে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে কামরুলের কাছ থেকে মুক্তিপণস্বরুপ পাঁচ লাখ টাকা দাবি করে আসামিরা। কামরুলকে টাকা না দিলে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। পরে কামরুল তার গাড়ির হেলপার ভুলুকে বিষয়টি জানালে ভুলু আসামিদের দেয়া বিকাশ নম্বরে ২০ হাজার টাকা পাঠায়। কামরুলকে আরো টাকা আনার জন্য মারধর করে আসামিরা। পরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে সেখান থেকে কৌশলে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয় ভুক্তভোগী কামরুল। এই ঘটনায় কামরুল বাদী হয়ে ওই চক্রের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং- ৮।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসলাম হোসেন বলেন, ভুক্তভোগী কামরুল বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে মঙ্গলবার রাতে ওই ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে দুই নারীসহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা প্রত্যেকেই প্রতারক চক্রের সদস্য। বিভিন্ন পুরুষদের মোবাইলে প্রেমের ফাঁদে ফেলে একই কায়দায় মুক্তিপণ আদায় করে আসছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তা স্বীকার করেছে। তাদেরকে বুধবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আজকের জনপ্রিয় সংবাদ

বন্দর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এম্বুলেন্স হস্তান্তর

নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ আবদুল কাদেরের হাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় …